সাইফ আল-ইসলামের ফাঁসির রায় এবং দ্রুত বিচারের সমস্যা


গাদ্দাফীর ছেলে সাইফুল ইসলাম সহ মোট নয়জনকে ২০১১ সালের যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে ফায়ারিং স্কোয়াডে মৃত্যুদন্ড দিয়েছে ত্রিপলীর একটা আদালত। বিএনপিপন্থীদের ভাষায় বলতে হয়, আমিও এদের বিচারের পক্ষে, কিন্তু … 🙂

এইসব ক্ষেত্রে “ছাগু” ট্যাগ দেওয়াটা ট্রেন্ড হলেও এই কিন্তুটা আসলেই বড় একটা ব্যাপার। এতো বড় একটা যুদ্ধ হয়েছে, এতো হাজার হাজার মানুষ গণহত্যায় মারা গিয়েছে, এর দায় তো কাউকে না কাউকে নিতেই হবে। আর সাইফুল ইসলামের ভাষণগুলো যে বিদ্রোহীদের প্রতি কিরকম উস্কানিমূলক এবং বিদ্বেষমূলক ছিল, সেটা তো আমাদের নিজেদেরই দেখা! কাজেই আমার ধারণা একটা “স্বচ্ছ”, “নিরপেক্ষ” এবং “আন্তর্জাতিক মানের” বিচার হলেও সাইফুল ইসলাম এবং অন্যান্য অভিযুক্তদের ফাঁসি না হলেও যাবজ্জীবন কারাদন্ড অবশ্যই হতে পারতো।

সমস্যাটা হচ্ছে, বিশ্বের প্রায় সবদেশেই শাসকশ্রেণী হয়তো ক্ষমতার লোভে যুদ্ধাপরাধীদের সাথে আঁতাত করে ক্ষমতার ভাগ দেয়, অথবা নিজেদের ক্ষমতা আরো ভালোভাবে কুক্ষিগত করার জন্য নিরপেক্ষতা এবং স্বচ্ছতার পরোয়া না করেই তড়িঘড়ি করে যুদ্ধাপরাধীদের এবং সেই সাথে অন্যান্য বিরুদ্ধমতের নেতাদের বিচারকার্য সম্পন্ন করে। প্রথমটা যে ভয়াবহ অন্যায় সেটা তো দিবালোকের মতো পরিষ্কার। কিন্তু দ্বিতীয়টাও কম ক্ষতিকর না। দ্বিতীয়টার ফলে মানুষের মনে অভিযুক্ত অপরাধীদের প্রতি একটা সফট কর্ণার তৈরি হয় এবং ভবিষ্যতে রাজনৈতিক এবং আইনী জটিলতার ক্ষেত্র প্রস্তুত হয়।

সময় একটু বেশি লাগলেও এবং শাস্তি একটু কম হলেও এই ধরনের সেনসিটিভ কেসগুলোর ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা এবং নিরপেক্ষতা অবলম্বন করা শাসকশ্রেণীর নিজেদেরই ভবিষ্যতের জন্য অত্যন্ত জরুরী। তা না হলে ফলাফল অনেকটা বাংলাদেশের জিয়াউর রহমান ভার্সেস কর্ণেল তাহের বিতর্কের মতো হতে পারে।

কর্ণেল তাহেরের বিরুদ্ধ যেসব অভিযোগ ছিল, তাতে একেবারে শতভাগ সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষভাবে বিচার করলেও দেশদ্রোহিতার অভিযোগে তার ফাঁসি হতে পারত। কিন্তু জিয়াউর রহমান কোন ঝুঁকি নিতে চাননি। তিনি তাড়াহুড়া করে প্রহসনের বিচারের মাধ্যমে তাহেরের ফাঁসি নিশ্চিত করেছিলেন। ফলাফল কী হয়েছে? ৩৫ বছর পর আদালতের রায়ে তাহেরের বিচারকে অবৈধ বলে রায় দেওয়া হয়েছে। ফলে একশ্রেণীর মানুষের কাছে এখন তাহের নায়ক, আর জিয়া খলনায়ক!

প্রথম লেখা: ২৮ জুলাই ২০১৫, ফেসবুকে

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s