Category Archives: রিভিউ

আমার লেখা বিভিন্ন মুভি, বই, সফটওয়্যার বা ওয়েব সাইটের রিভিউ

ম্যারি কোলভিনের প্রাইভেট ওয়ার

ফিচার ইমেজে গাদ্দাফীর সাথে ম্যারি কোলভিনের যে দৃশ্যটা দেখা যাচ্ছে, সেটা বাস্তবের না, A Private War সিনেমার। তবে বাস্তবেও সানডে টাইমসের সাংবাদিক ম্যারি কোলভিন গাদ্দাফীর সাক্ষাৎকার নিয়েছিলেন। একবার না, একাধিক বার।

১৯৮৬ সালে রিগ্যান প্রশাসন যখন লিবীয় নেতা মোয়াম্মার আল-গাদ্দাফিকে হত্যার উদ্দেশ্যে তার বাসভবনের উপর বিমান হামলা (অপারেশন এল-ডোরাডো ক্যানিয়ন) পরিচালনা করে, তখন ম্যারি কোলভিনই ছিলেন প্রথম সাংবাদিক, যিনি গাদ্দাফির সাক্ষাৎকার নিয়েছিলেন।

বাস্তবে গাদ্দাফীর সাথে ম্যারি কোলভিন; Image Source: BBC

পরবর্তীতে ২০১১ সালে গৃহযুদ্ধ শুরুর পরেও গাদ্দাফির প্রথম সাক্ষাৎকার নিয়েছিলেন তিনি। ইনফ্যাক্ট গাদ্দাফী প্রশাসন ম্যারি কোলভিনের রিকোয়েস্টে সাড়া দিয়ে মোট তিনজন সাংবাদিককে গাদ্দাফীর সাথে সাক্ষাৎ করার অনুমতি দেয়। বাকি দুইজন সাংবাদিক কারা হবেন, সেটা সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতাও তারা ম্যারির উপরেই ছেড়ে দেয়।

Continue reading ম্যারি কোলভিনের প্রাইভেট ওয়ার

মুহাম্মদ: দ্য ম্যাসেঞ্জার অফ গড – রাসূলের বাল্যকাল নিয়ে বিতর্কিত ইরানি চলচ্চিত্র

মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা) এর জীবনীর উপর ভিত্তি করে প্রথম আন্তর্জাতিক মানের চলচ্চিত্র নির্মিত হয়েছিল ১৯৭৬ সালে। ‘দ্য ম্যাসেজ’ নামে ঐ চলচ্চিত্রটির নির্মাণের পেছনের কাহিনী নিয়ে রোর বাংলায় একটি প্রবন্ধও আছে। ক্লাসিক হিসেবে মর্যাদা প্রাপ্ত ঐ চলচ্চিত্রটি নির্মাণের প্রায় চার দশক পর বিশ্ববাসী আবারও একটি চলচ্চিত্র উপহার পেল রাসূলের (সা) জীবনী নিয়ে। ২০১৫ সালে নির্মিত এবারের চলচ্চিত্রটির নাম ‘মুহাম্মাদ: দ্য ম্যাসেঞ্জার অফ গড’। বিষয়বস্তু একই হলেও এবারের চলচ্চিত্রটি প্রায় সবদিক থেকেই ভিন্ন এবং একই সাথে কিছুটা বিতর্কিত। Continue reading মুহাম্মদ: দ্য ম্যাসেঞ্জার অফ গড – রাসূলের বাল্যকাল নিয়ে বিতর্কিত ইরানি চলচ্চিত্র

দোতলায় ল্যান্ডিং, মুখোমুখি ফ্ল্যাট, কথা হবে তো?

দেখলাম অস্থির সময়ের স্বস্তির গল্প সিরিজের নাটক “কথা হবে তো?” চমৎকার একটি নাটক। গল্পটি খুবই চেনা এবং সিম্পল। কিন্তু পরিচালকের নিপুণতায় সেটিই হয়ে উঠেছে হাজার নাটকের ভীড়ে একরাশ স্নিগ্ধতার পরশ বুলিয়ে দেওয়া ব্যতিক্রমধর্মী সুন্দর একটি নাটক।

কাহিনী বলব না, শুধু বলি মুখোমুখি দুটো ফ্ল্যাট, পাশাপাশি বসবাস, দেখা হয়, খবর শোনা হয়, কিন্তু কথা বলা হয় না। বিদায়ের সময় দোতলার ল্যান্ডিংয়ে দাঁড়িয়ে টুকটাক ভাঙ্গাভাঙ্গা কথা, এরপরই এতোদিনের ভুলের অবসান … শেষ দৃশ্যের কথপোকথের দৃশ্যটা দারুণ ছিল। কিছুটা আদনান আল রাজীবের সীলন টির বিজ্ঞাপনগুলোর কথা মনে করিয়ে দিচ্ছিল।

Continue reading দোতলায় ল্যান্ডিং, মুখোমুখি ফ্ল্যাট, কথা হবে তো?

ডাউনলোড করুন বাংলা টিনটিন সমগ্র (হাই কোয়ালিটি)

কমিক্সের মধ্যে টিনটিন আমার সবচেয়ে প্রিয়। এবং এটি যে অন্যদেরও ভীষণ প্রিয়, সেটি বুঝা যায় আমার ব্লগে যত ভিজিটর আসে, তার একটা বড় অংশই আসে গুগল থেকে টিনটিন সার্চ করার মাধ্যমে।

ব্লগটি নতুন করে সাজানোর পর প্রথমে পুরানো অনেক পোস্টের পাশাপাশি টিনটিন ডাউনলোড করার পোস্টটিও রিমুভ করে দিয়েছিলাম। কিন্তু পাঠক চাহিদার কথা বিবেচানা করে আবার নতুন করে পোস্ট করলাম।

Continue reading ডাউনলোড করুন বাংলা টিনটিন সমগ্র (হাই কোয়ালিটি)

হুমায়ূন আহমেদের শান্তিতে নোবেল পুরস্কার

এইটা কোন ব্যাঙ্গাত্মক বা ফানি পোস্ট না, সিরিয়াসলিই বলছি। বাংলাদেশের কাউকে যদি শান্তিতে নোবেল পুরস্কার দিতে হয়, তবে সেটা কাজী আনোয়ার হোসেনকেই দেওয়া উচিত। জ্বী, ঠিকই পড়ছেন, সাহিত্যে না, শান্তিতেই নোবেল পুরস্কার দেওয়ার কথা বলছি।

বাংলাদেশের বিপুল পরিমাণ মানুষকে বইমুখী করার ব্যাপারে দুইজন ব্যক্তির অবদান অনস্বীকার্য। এক. হুমায়ূন আহমেদ, দুই, কাজী আনোয়ার হোসেন। শুধু সেবার আর হুমায়ুন আহমেদের তথাকথিত হলকা আর চটুল বই পড়তে পড়তেই কত পোলাপান যে নিজের অজান্তেই পাঠক হয়ে গেছে, তার কোন হিসাব বের করা যাবে না।

Continue reading হুমায়ূন আহমেদের শান্তিতে নোবেল পুরস্কার

ডুব নাটক নাকি সিনেমা?

ফারুকীর ডুব মুক্তি পাচ্ছে আগামীকাল। এবং যথারীতি কিছু দর্শক সিনেমা দেখে বা না দেখেই বলবে, এটা সিনেমা হয়নি, নাটক হয়েছে।

ফারুকীকে আপনার পছন্দ না হতে পারে, ফাইন। ফারুকীর সিনেমার থীম, স্টাইলও পছন্দ না হতে পারে, আরও ফাইন। হুমায়ূন আহমেদের নাম ভাঙ্গিয়ে সিনেমা তৈরি করাটা আপনার কাছে অনৈতিক মনে হতে পারে, ফাইন টু দ্যা পাওয়ার ইনফিনিটি; বাট ইউ জাস্ট কান্ট লেবেল এ ফিচার ফিল্ম অ্যাজ এ নাটক!

Continue reading ডুব নাটক নাকি সিনেমা?

অসাধারণ কিছু নন লিনিয়ার টাইমলাইনের মুভি

নন লিনিয়ার টাইমলাইন হল যেখানে সিনেমার কাহিনী সরলগতিতে এগোয় না। অথবা বলা যায়, যেখানে সিনেমার দৃশ্য পরম্পরা বাস্তবের ঘটনার পরম্পরা অনুসরণ করে না। আগের ঘটনা পরে, পরের ঘটনা আগে এভাবে দেখানো মিলিয়ে-মিশিয়ে দেখানো হয়। এ ধরনের মুভির সবচেয়ে বড় উপকারিতা হল, এতে কাহিনী এমন জটিলভাবে সাজানো যায়, যে পুরো মুভি জুড়ে শেষের ঘটনাগুলো সম্পর্কে কিছু কিছু আভাস দিয়ে আকর্ষণও তৈরি করা যায়, আবার মূল রহস্যটা একেবারে শেষ দৃশ্যে এসে উন্মোচিত করা যায়। ফলে পুরো সিনেমাজুড়েই সিনেমাটা দর্শকের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে থাকতে পারে।

Continue reading অসাধারণ কিছু নন লিনিয়ার টাইমলাইনের মুভি