Tag Archives: সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং

সিভিল ইঞ্জিনিয়ারের প্রেম

এক সিভিল ইঞ্জিনিয়ার ভদ্রলোক আর তার প্রেমিকা বিকেলে বেড়াতে বের হয়েছে। প্রেমিকার মন খারাপ, কারণ তার প্রেমিক তার সাথে ঘুরতে বের হলে কখনোই তার রূপের প্রশংসা করে না। এমনকি, সে কি পরে এসেছে, কিভাবে সেজে এসেছে, সেদিকেও ভালো করে তাকায় না। আশেপাশের সুন্দর সুন্দর স্ট্রাকচারগুলোর দিকে চেয়ে চেয়েই তার সময় কেটে যায়।

তো এই বিশেষ দিনে ভদ্রলোক তার স্বভাবের বিরুদ্ধে গিয়ে প্রেমিকার হাত ধরে বলল, দেখ কী সুন্দর আবহাওয়া! না গরম, না ঠান্ডা।

প্রেমিকার মন খুশিতে নেচে উঠল। এই প্রথম বুঝি তার প্রেমিক তার সাথে দুই একটা রোমান্টিক গলায় কথা বলবে! সে আগ্রহ নিয়ে প্রেমিকের মুখের দিকে তাকাল।

ইঞ্জিনিয়ার প্রেমিক তার কথা কন্টিনিউ করে যেতে লাগল, আবহাওয়াটা আসলেই চমত্‍কার! রোদও নেই, বৃষ্টিও নেই। কিছুটা মেঘলা … প্রেমিকা পরের বাক্যটা শোনার জন্য উত্‍সুক নয়নে তার প্রেমিকের দিকে তাকাল। সিভিল ইঞ্জিনিয়ার ভদ্রলোক তার বাক্যটা শেষ করল – ওয়েদারটা কংক্রীট কাস্টিংয়ের জন্য একেবারে পারফেক্ট 🙂

প্রথম লেখা: ১ ডিসেম্বর, ২০১৪, ফেসবুকে

প্রযুক্তির উৎকর্ষতা: দৃষ্টিনন্দন ঘূর্ণায়মান বাড়ি

ভাবতে পারেন, আপনি যে বাড়িটিতে বাস করছেন, সেটি সারা জীবন বৈচিত্র্যহীনভাবে এক দিকে মুখ করে থাকার পরিবর্তে প্রতিনিয়ত নিজ অক্ষের উপর ঘুরে চলছে? একই জানালা দিয়ে আপনি সকাল বেলা পূর্বদিকের সূর্যোদয় দেখছেন, দুপুর বেলা দখিনা হাওয়া খাচ্ছেন, আর সন্ধ্যাবেলা সেই জানালা দিয়েই পশ্চিমের সূর্যাস্ত উপভোগ করছেন? কাল্পনিক মনে হতে পারে, কিন্তু বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তির উৎকর্ষের এই যুগে কোনো কিছুই অসম্ভব নয়। সংখ্যায় অল্প হলেও বিশ্বের বেশ কিছু স্থানে সত্যি সত্যিই এমন কিছু বাড়ি আছে, যেগুলো নিজ অক্ষর উপর আবর্তন করতে সক্ষম!

বিশ্বের উল্লেখযোগ্য কয়েকটি ঘূর্ণায়মান ভবন হলো:

১। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার স্যান ডিয়েগোর মাউন্ট হেলিক্সের বৃত্তাকার দোতলা বাড়ি রোটেটিং হোম (Rotating Home), যা একটি সেন্ট্রাল কোরের চারপাশে সর্বনিম্ন ৩০ মিনিটে একবার এবং সর্বোচ্চ ২৪ ঘন্টায় একবার যত খুশি তত বার ঘুরতে পারে।।

২।  ১৯৩৫ সালে নির্মিত ইতালির ভিলা গিরাসোল (Villa Girasole), যা তিনটি বৃত্তাকার রেলপথে ১৫টি রোলার স্কেটের উপর দিয়ে সূর্যকে অনুসরণ করে প্রতি ৯ ঘণ্টা ২০ মিনিটে একবার আবর্তন করতে পারে।

৩। ব্রাজিলে অবস্থিত সম্পূর্ণ ১৫ তলা বিশিষ্ট কনক্রিট স্ট্রাকচারে তৈরি স্যুইট ভোলার্দ টাওয়ার (Suite Vollard Tower), যার ১১টি আবাসিক তলা পৃথকভাবে যেকোনো দিকে যত খুশি তত বার আবর্তন করতে পারে।

এই ভবনগুলো ছাড়াও আরো কয়েকটি ঘূর্ণায়মাণ ভবনের ছবি, ভিডিও এবং বিস্তারিত বিবরণ সহ মূল প্রবন্ধটি পড়তে পারেন Roar বাংলার এই লিংক থেকে